Call Now

ফেসবুকে Conversion ক্যাম্পেইন সেট করার পদ্ধতি

এই পোস্টটি কাদের জন্য উপযোগী?

  • মার্কেটিং/ব্র্যান্ড পেশাজীবী
  • বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী
  • অনলাইন ফ্রিল্যান্সার
  • ডেটাভিত্তিক ডিজিটাল মার্কেটিং এ আগ্রহী যে কেউ
  • বিভিন্ন কোম্পানির পরিচালক
  • মার্কেটিং এজেন্সির পরিচালক

যা যা শেখা যাবে এই ব্লগ থেকে

  • ফেসবুকে কনভার্সন ক্যাম্পেইন কি?
  • ফেসবুকে কনভার্সন ক্যাম্পেইন বনাম ফেসবুক লিড জেনারেশন ক্যাম্পেইন ।
  • কনভার্সন ক্যাম্পেইন সেট করার উদ্দেশ্য।
  • কিছু রিসোর্স পাওয়া যেতে পারে

বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে ফেসবুক মার্কেটিং এর বিভিন্ন KPI (Key Performance Indicator যেমন – Reach, Impression কিংবা Like ইত্যাদি ) খুব গুরুত্বপূর্ন হলেও আন্তর্জাতিক প্রেক্ষাপটে ROI (Return on Investment) এবং ROAS (Return on Ad Spend) ছাড়া বলতে গেলে অন্য KPI (যেমন – Reach, Impression কিংবা Like ইত্যাদি) কে খুব একটা বেশি গুরুত্ব দেওয়া হয়না। দীর্ঘ দিন আন্তর্জাতিক পরিসরে কাজ করার সুবাদে এটা বুঝতে পেরেছি যে ক্লায়েন্ট রা সত্যিকার অর্থে ROI কিংবা ROAS কেই সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে থাকে এবং এটাও সত্যিই যে প্রমোশনের ক্ষেত্রে ROI কেই সর্বাধিক গুরুত্ব দেওয়া উচিত। আর ROI সঠিকভাবে নির্ণয়ের ক্ষেত্রে কনভার্সন অ্যাড খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

এবার আসা যাক কনভার্সন ক্যাম্পেইন কি?

বিভিন্ন ব্র্যান্ড এবং প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন বিষয়ের উপর ভিত্তি করে ভিন্ন ভিন্ন ঘটনাকে কনভার্সন বলা যেতে পারে। যেমন ধরুন আমাদের ওয়েবসাইটের ক্ষেত্রে আমরা নিচের বিভিন্ন ইভেন্ট কে কনভার্সন হিসেবে গণ্য করছিঃ

  • ডিজিটাল মার্কেটিং কন্সালটেন্সি পাবার জন্য ওয়েবসাইটের নির্দিষ্ট ফর্ম পূরণের মাধ্যমে আমাদের সাথে যোগাযোগ করাকে আমরা কনভার্সন হিসেবে বিবেচনা করছি।
  • আমাদের অন্যান্য সেবা যেমনঃ ফেসবুক মার্কেটিং ট্রেনিং/ ডিজিটাল মার্কেটিং ট্রেনিং পাবার ব্যাপারে আমাদের সাথে ওয়েবসাইটের মাধ্যমে যোগাযোগের এই ঘটনাকেও আমরা কনভার্সন হিসেবে গণ্য করছি। (বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে ট্রেনিং বিষয়টা খুবই নেগেটিভ ভাবে দেখা হয় – আমরা বিশ্বাস করি যে একটি সঠিক ট্রেনিং বদলে দিতে একজনের স্বপ্ন। বাস্তবতা হল যেহেতু আমরা একটি ডেটাভিত্তিক ডিজিটাল মার্কেটিং এজেন্সি সেহেতু এ ধরণের ট্রেনিং আয়োজন আমাদের কে অনেক ক্ষেত্রেই নতুন নতুন মানুষের সাথে পরিচিত করায় যেটি আমাদের সার্ভিস কে অনেক খানি তরান্বিত করে। )

N.B: ইকমার্স ওয়েবসাইটের ক্ষেত্রে কোন পণ্যের অর্ডার যখন কোন ক্রেতা সম্পন্ন করে থাকে, সেটাকে কনভার্সন হিসেবে গণ্য করা হয়। আপনার ওয়েবসাইটের নির্দিষ্ট ফর্ম পূরণ কেও কনভার্সন হিসেবে গণ্য করা যেতে পারে।

Free Training

on Strategic & Data Driven Facebook Marketing

Enroll Now for FREE
Article Continues

কনভার্সন ক্যাম্পেইনের সুবিধাঃ

কনভার্সন ক্যাম্পেইনের অনেক ধরণের সুবিধা আছে। যেমন ধরুন আমাদের ওয়েবসাইটে বিভিন্ন চ্যানেলের (Facebook, LinkedIn, SMS, Google Ads ইত্যাদি) মাধ্যমে ট্রাফিক প্রবেশ করছে। গুগল এ্যানালিটক্স ব্যবহার করে আমরা জানতে পারি যে কোন চ্যানেল থেকে আমাদের ওয়েবসাইটের নির্দিষ্ট কনভার্সন এর লক্ষ্যমাত্রা সবথেকে বেশি অর্জিত হচ্ছে এবং সেটার রেইট কত শতাংশ। নিচের স্ক্রিনশট দেখলে একটি বেসিক ধারণা পাওয়া যেতে পারে।

উপড়ের স্ক্রিনশটে দেখা যাচ্ছে যে আমাদের একটি নির্দিষ্ট গোল কনভার্সন এর ক্ষেত্রে আমরা সবথেকে বেশি কনভার্সন রেইট পাচ্ছি ডিরেক্ট ট্রাফিক থেকে। আপনার ক্ষেত্রে অন্য যে কোন ধরণের ঘটনা ঘটতে পারে। এ ধরণের ঘটনা থেকে অনেক ধরণের সিদ্ধান্ত নেওয়া যেতে পারে। যেমন হতে পারে যে একটি নির্দিষ্ট চ্যানেল যেমন ধরুন গুগল এ্যাড থেকে আপনি সবচেয়ে ভালো কনভার্সন রেইট পাচ্ছেন, সেক্ষেত্রে আপনি অবশ্যই ঐ নির্দিষ্ট চ্যানেলে আপনার খরচের পরিমাণ বাড়াবেন, তাই নয় কি?

আপনার ওয়েবসাইট কিংবা ই-কমার্স যাই হোক না কেন আপনি যদি বিভিন্ন চ্যানেল যেমন ফেসবুক, গুগল অ্যাড কিংবা অন্য কোন চ্যানেলের মাধ্যমে যদি আপনার প্রচারণা চালিয়ে থাকেন সেক্ষেত্রে কনভার্সন এর বিভিন্ন Metric বিশ্লেষণ করে এটা বলে দেওয়া যায় যে কোন চ্যানেল থেকে আপনি সবথেকে বেশি কনভার্সন পাচ্ছেন এবং সেটার রেইট কত শতাংশ।

N.B: তবে এ ধরণের ট্র্যাকিং পাবার ক্ষেত্রে আপনাকে বিভিন্ন চ্যানেলের তথ্য সঠিকভাবে গুগল এ্যানালিটিক্সে পাঠাতে হবে । আপনি আপনার ওয়েবসাইটের কোন ইভেন্ট কে কনভার্সন হিসেবে গণ্য করতে চান সেটিও খুব সুগঠিতভাবে আগে থেকেই সেট করতে হবে।

বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে সীমাবদ্ধতাঃ

যদিও বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে নিম্নোক্ত কারণগুলোর কারণে এই ধরণের KPI সঠিকভাবে পরিমাপ করা খুবই কঠিন, তবুও চাইলে কিছুটা হলেও কাছাকাছি লক্ষে পৌঁছানো সম্ভবঃ

  • বেশিরভাগ ক্ষেত্রে দেখা যায় ক্রেতা সরাসরি পণ্য ক্রয় করেন না। যেহেতু অনলাইন কেনাকাটার ক্ষেত্রে এখনো বাংলাদেশের মানুষের আস্থা সে পর্যায়ে পৌঁছায়নি সেক্ষেত্রে ক্রেতা পণ্য ক্রয় করার আগে অনেক ধরণের প্রশ্ন ফোন কিংবা অন্যান্য মাধ্যম যেমন ফেসবুক পেইজের মেসেঞ্জার অপশনে গিয়ে করে থাকেন। যখন অর্ডারটি ওয়েবসাইটের মাধ্যমে না হয়ে অন্য মাধ্যমে হয় তখন এ ধরণের KPI পরিমাপ করা খুবই কষ্টসাধ্য ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায়।
  • অধিকাংশ অনলাইন শপের ওয়েবসাইটে ক্রেতার মনমত তথ্য থাকেনা এবং পেমেন্ট মেথড যুক্ত থাকেনা বলে অনেক ক্ষেত্রে ফোন করেই অর্ডার দিয়ে দেন ক্রেতারা।
  • বাংলাদেশের ক্ষেত্রে আরো একটি বিষয় লক্ষ্য করা যায় আর সেটি হল ক্যাশ অন ডেলিভারি যার কারণে রিয়েল টাইম ROI কিংবা ROAS নির্ণয় করা খুবই কষ্টসাধ্য।
  • সঠিক ভাবে ওয়েব এ্যানালিটিক্স ব্যাবহার না করার কারণে এ ধরণের ট্র্যাকিং করা অনেক ক্ষেত্রেই সম্ভবপর হয়ে ওঠেনা।

যাইহোক, আজ আমরা খুব মজার একটি বিষয় নিয়ে আলোচনা করব আর সেটি হল কিভাবে ফেসবুক মার্কেটিং এর ক্ষেত্রে Conversion Ad অবজেকটিভ ব্যবহার করে অ্যাড ক্যাম্পেইন সেট করা যায়। আমার দৃঢ় বিশ্বাস আজকের এই পোস্টটি আপনার দুর্দান্ত কাজে আসবে কারণ এই ধরণের অবজেকটিভ ব্যবহার করেই আন্তর্জাতিক পরিসরে ক্যাম্পেইন সম্পন্ন করা হয় যেটি আমাদের দেশে খুব একটা বেশি হয়না বললেই চলে।

বিনামূল্যে জয়েন করুন

বাংলা ভাষার সবথেকে বড় ডেটাভিত্তিক ডিজিটাল মার্কেটিং কমিউনিটিতে

জয়েন করতে চাই
Article Continues

লিড জেনারেশন ক্যাম্পেইন বনাম কনভার্সন ক্যাম্পেইন

  • লিড জেনারেশন ক্যাম্পেইনের ক্ষেত্রে আমার অভিজ্ঞতায় দেখেছি যে, যেহেতু লিড জেনারেশন ক্যাম্পেইনের ক্ষেত্রে ফর্ম পূরণ করা খুবই সহজ সেক্ষেত্রে অনেক ক্ষেত্রেই অনেকে না বুঝেও ফর্ম পূরণ করে থাকে। ফলশ্রুতিতে যারা সেই লিড নিয়ে কাজ করে থাকে তারা অনেক ক্ষেত্রে বিব্রতকর অবস্থার সম্মুখীন হয়ে থাকে।
  • যেহেতু কনভার্সন ক্যাম্পেইনের ক্ষেত্রে প্রত্যাশিত ক্লায়েন্ট কে প্রথমে ওয়েবসাইটের ল্যান্ডিং পেইজে আনা হয় সেক্ষেত্রে যারা বিভিন্ন ফর্ম পূরণ করে থাকে তারা কিছুটা হলেও এ বিষয় বুঝে শুনে যথাযথভাবে পূরণ করে থাকে।
  • লিড জেনারেশন ক্যাম্পেইন করা যথেষ্ট সহজ হলেও কনভার্সন ক্যাম্পেইনের ক্ষেত্রে অনেক ধরণের প্রক্রিয়া শেষ করে তারপর এ ধরণের ক্যাম্পেইন শুরু করতে হয়। সুতরাং যারা খুব সহজেই প্রত্যাশিত লিড পেতে চান তাদের জন্য লিড জেনারেশন ক্যাম্পেইনই শ্রেয় বলে আমার মতামত।

কেইসঃ অতি সম্প্রতি আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম যে যারা আমাদের ওয়েবসাইটে সাম্প্রতিক সময়ে যারা ভিজিট করেছেন তাদেরক নিয়ে একটি ওয়েবিনার করতে। পুরো ক্যাম্পেইনটি আমরা ফেসবুকের কনভার্সন অবজেকটিভ ব্যবহার করে সম্পন্ন করতে চেয়েছিলাম।

কেইস সমাধানের এ্যাপ্রোচঃ

  • একটি ল্যান্ডিং পেইজ তৈরি করা
  • ল্যান্ডিং পেইজে একটি ফর্ম থাকবে যেখানে আগ্রহীরা তাদের তথ্য দিবে।
  • ফর্ম টি যখন পূরণ করা হবে তখন ফেসবুক পিক্সেলে একটি ইভেন্ট হবে যেই ইভেন্ট টি ব্যবহার করে ফেসবুকে কনভার্সন অ্যাড তৈরি করা হবে।
  • একই সাথে ফর্ম ফিলাপের সাথে সাথে গুগল এ্যানালিটিক্সের গোল সেকশনে দেখা যাবে কতগুলো গোল সম্পন্ন হল (আজকে আপাতত এ পর্যন্তই দেখব – গুগল এ্যানালিটিক্স এর গোল নিয়ে অন্য কোন একদিন আলোচনা করা যেতে পারে)

যাই হোক প্রথমেই বলে রাখি যে বিষয়টি পুরোপুরি বুঝতে হলে দয়া করে পুরো পোস্টটি ভালোভাবে বুঝে পড়তে হবে এবং চেষ্টা করতে হবে সাথে সাথেই বিষয়গুলো প্র্যাকটিস করার।

Strategic & Data Driven

Digital Marketing Training @2999 BDT

Save 70% Today!
Article Continues

যা যা জানলে আপনার এই ধাপগুলো অনুসরণ করতে সুবিধা হবেঃ

  • Google Tag Manager এর বেসিক। গুগল ট্যাগ ম্যানেজার ব্যবহার করে ফেসবুকে কিভাবে পিক্সেল সেট করতে হয় সে বিষয়ে অন্য একটি পোস্ট আমাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত হয়েছে যেটি পাওয়া যাবে এই লিঙ্ক থেকেঃ Google Tag Manager (GTM) ব্যবহার করে Facebook Pixel সেট করা
  • HTML, CSS সম্পর্কে বেসিক ধারণা থাকতে হবে।
  • ফেসবুক পিক্সেলের স্ট্যান্ডার্ড ইভেন্ট এবং কাস্টম ইভেন্ট সম্পর্কে ধারণা থাকলে বিষয়টি বুঝতে আরো সহজ হবে।

মূল আলোচনায় ফিরে আসা যাকঃ

পুরো বিষয়টি যথাযথভাবে বাস্তবায়নের জন্য আমরা Google Tag Manager, Facebook Pixel এবং Google Analytics এর সাহায্য নিয়েছি। একটি কথা না বললেই নয় সেটি হল ওয়েবসাইটের ফর্ম পূরণের ইভেন্ট কে অনেক পদ্ধতিতেই ট্র্যাক করা যায় যেমনঃ

  • গুগল ট্যাগ মানেজার এর ফর্ম সাবমিশন ট্রিগার ব্যবহার করে। (যেটি খুবই সহজ প্রক্রিয়- অন্য একদিন আলোচনা করা যাবে)
  • Element Visibility ট্রিগার ব্যবহার করেও এ কাজটি করা সম্ভব। (আজকের আলোচনায় আমরা এ পদ্ধতি ব্যবহার করব)
  • চাইলে Listener Functionality ব্যবহার করেও এটি করা সম্ভব। (যথেষ্ট কঠিন একটি প্রক্রিয়া – এটি নিয়ে ইংরেজিতে একটি পোস্ট পাওয়া যাবে)

যাইহোক আজকে আমরা দেখবো যে Element Visibility ব্যবহার করে কাজটি যেভাবে সম্পন্ন করা হয়েছে।

প্রথমে দেখে আসি যে ল্যান্ডিং পেইজে কি রয়েছেঃ

ল্যান্ডিং পেইজ এর এ্যাড্রেসঃ https://www.theturtlesturn.com/free-webinar

  • ইভেন্ট এর ডিটেইল রয়েছে
  • ইভেন্ট এর হোস্ট সম্পর্কে বলা আছে
  • নিচে একটি ফর্ম আছে (আমাদের উদ্দেশ্য ছিল এই ফর্ম পূরণ হবার ঘটনাই আমাদের ক্ষেত্রে কনভার্সন)

ল্যান্ডিং পেইজের নিচে যে ফর্মটি আছে তা যখন পূরণ করা হচ্ছে এবং সাবমিট বাটনে ক্লিক করা হচ্ছে তখন নিচের এ মেসেজটি ওয়েব উইন্ডোতে আসছে।

Strategic & Data Driven

Digital Marketing Training @2999 BDT

Save 70% Today!
Article Continues

সুতরাং এই এলিমেন্ট (মানে থ্যঙ্ক ইউ মেসেজ) যখন ব্রাউজারে ভিজিবল হচ্ছে তখন সেটিকে আমরা ট্রিগার হিসেবে বিবেচনা করতে পারি। আমরা ইতিমধ্যে জেনে গিয়েছি যে গুগল ট্যাগ মানেজারে কোন ট্যাগ তখনই কাজ করে যখন সেখানে ট্রিগার থাকে। আর আমাদের এই ক্ষেত্রে ট্রিগার হবে যখন “Thanks for Registering” এই মেসেজ টি ব্রাউজারে ভিজিবল হবে (যেটাকে আমরা আলোচনার সুবিধার্থে এই আর্টিকেলের পরবর্তী অংশে “Thank You Message” হিসেবে উল্লেখ করব)।

চলুন এই টেক্সটকে আমরা আমাদের কাজের সুবিধার্থে ওয়েবসাইটের ব্যাক এন্ড থেকে একটা Class এর ভেতর রেখে আসি।

উপড়ের স্ক্রিনশট থেকে দেখা যাচ্ছে যে আমরা আমাদের ওয়েবসাইটের ব্যাক এন্ডে গিয়ে উপরোক্ত লেখাকে একটি ক্লাসের ভেতর রেখেছি। সুতরাং যখন ফর্ম পূরণ করা হবে তখন এ ক্লাসটিও ওয়েব উইন্ডোতে এক্সিকিউট হবে। এবার আমরা যদি ল্যান্ডিং পেইজে গিয়ে Inspect অপশন এ যাই সেক্ষেত্রে দেখা যাবে যে থ্যাংক ইউ মেসেজ টি “FreeWebinar” নামক একটি ক্লাসের ভেতরে আছে।

মজার ব্যাপার হল এ ক্লাস (FreeWebinar) টি তখনই ফায়ার করবে যখন ফর্ম টি ফিলাপ করা হবে। যাই হোক এবার Google Tag Manager এর ট্রিগার অপশনে গিয়ে Element Visibility অপশন সিলেক্ট করতে হবে এবং নিম্নোক্ত ভ্যালু গুলো বসিয়ে দিবঃ

  • Selection Method: CSS Selection এই অপশনটি বেছে নিতে হবে
  • Element Selector: .FreeWebinar দিয়েছি কারণ আমরা আমাদের মেসেজকে FreeWebinar নামক ক্লাসের ভেতর রেখেছি।

তাহলে ট্রিগার সেট করার কাজ শেষ। আমরা ইতিমধ্যে জেনে গিয়েছি যে কোন ট্যাগ ট্রিগার ছাড়া কাজ করেনা সেক্ষেত্রে যেহেতু আমরা ট্রিগার সেট করে ফেলেছি সেহেতু আমাদের এখন ট্যাগ সেট করতে হবে।

বিনামূল্যে জয়েন করুন

বাংলা ভাষার সবথেকে বড় ডেটাভিত্তিক ডিজিটাল মার্কেটিং কমিউনিটিতে

জয়েন করতে চাই
Article Continues

গুগল ট্যাগ ম্যানেজার এর Tag সেকশনে গিয়ে ট্যাগ টাইপ হিসেবে Custom HTML সিলেক্ট করতে হবে এবং যেহেতু এটি একটি কাস্টম ইভেন্ট সেহেতু নিচের কোডটি বসিয়ে দিব। উল্লেখ্য আমরা এক্ষেত্রে কাস্টম ইভেন্ট এর নাম দিয়েছি “FREEWEBINAR” .

ব্যাস, এবার গুগল ট্যাগ ম্যানেজার এর সাবমিট বাটন ক্লিক করতে হবে। এবার টেস্ট করে দেখা যাক যে ফর্ম ফিলাপ করলে “FREEWEBINAR” নামক ইভেন্ট বাস্তবায়িত হয় কিনা। আর এই টেস্টটি করার জন্য আমরা ফেসবুক এ্যাড ম্যানেজার এর ইভেন্ট ম্যানেজার এ গিয়ে টেস্ট ইভেন্ট বাটনে ক্লিক করব। এখানে আমাদের ওয়েবসাইটের নাম বসিয়ে দিলে ওয়েবসাইট থেকে ফেসবুক পিক্সেলে রিয়েল টাইম ডেটা আসা শুরু হয়ে যাবে। এবার ওয়েবসাইটে গিয়ে ফর্ম পূরণ করলে দেখা যাবে যে “FREEWEBINAR” ইভেন্টটি ফেসবুক পিক্সেলে বাস্তবায়ন হচ্ছে যেটি নিচের ওয়েবসাইটে পরিস্কারভাবে দেখা যাচ্ছে।

এবার কাস্টম কনভার্সন তৈরি করার পালা। আপনি ফেসবুক এ্যাড ম্যানেজার এর যে উইন্ডোতে অবস্থান করছেন সেই উইন্ডোতেই উপড়ের অবস্থিত Create Custom Conversion এই অপশনে ক্লিক করলে দেখা যাবে যে ওয়েবসাইট ইভেন্টে FREEWEBINAR ইভেন্ট দেখা যাচ্ছে। এবার এই কাস্টম কনভার্সন এর একটি নাম দিতে হবে। আমরা এই কাস্টম কনভার্সন এর নাম দিয়েছি Free Webinar Registration.

ব্যস। এবার ফেসবুক অ্যাড ম্যানেজারে গিয়ে কনভার্সন ক্যাম্পেইন সেট করার পালা।কাস্টম কনভার্সনটি তৈরি হয়ে গেলে ফেসবুক এ্যাড ম্যানেজার এর Objective অপশনে গিয়ে “Conversions” সিলেক্ট করতে হবে।

এবার ক্যাম্পেইন থেকে এ্যাড সেটে গেলেই দেখা যাবে যে কনভার্সন ইভেন্ট এর একটি ফিল্ড এসেছে যেখানে গিয়ে নিচের মত করে “Free Webinar Registration” এই ইভেন্টটি সিলেক্ট করতে হবে।

হয়ে গেল কনভার্সন এ্যাড সেট করা।

যেহেতু আমার অ্যাড টি গত কয়েকদিন রান করিয়েছি সেহেতু আমরা কিছু কনভার্সন এই অ্যাড থেকে পেয়েছি যা উপড়ের স্ক্রিনশট থেকে দেখা যাচ্ছে।

Free Training

on Strategic & Data Driven Facebook Marketing

Enroll Now for FREE
Article Continues

উপসংহারঃ

উপড়ের আলোচনা থেকে আমরা কিছুটা হলেও কনভার্সন অ্যাড সম্পর্কে ধারণা পেয়েছি। সত্যিকার অর্থে অনেক এ্যাপ্রোচ ব্যবহার করেই কনভার্সন অ্যাড তৈরি করা সম্ভব। উপড়ের আলোচনায় আমরা শুধুমাত্র একটি নির্দিষ্ট এ্যাপ্রোচ ব্যবহার করে কনভার্সন অ্যাড তৈরি করেছি। এর মানে এই নয় যে সর্বদা আপনাকে এই এ্যাপ্রোচ ব্যবহার করেই কনভার্সন অ্যাড সেট করতে হবে।

লেখক পরিচিতিঃ

এই ব্লগ পোস্টটি লিখেছেন টি৩ কমিউনিকেশন্স লিমিটেড এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ নাজমুল হোসেন। দীর্ঘ ১৩ বছরের ডিজিটাল মার্কেটিং ক্যারিয়ারে তিনি পেয়েছেন দেশীয় ও আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি । কাজ করার সুযোগ পেয়েছেন বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় অনলাইন মার্কেটপ্লেস আপওয়ার্ক এর ব্র্যান্ড এ্যাম্বাসেডর হিসেবে। কাজের স্বীকৃতি হিসেবে ২০১৪ সালে অর্জন করেন বেসিস আউটসোর্সিং এ্যাওয়ার্ড। ইল্যান্স-ওডেস্ক (বর্তমান আপওয়ার্ক) এ্যানুয়াল ইম্প্যাক্ট রিপোর্টে উঠে এসেছে তার সফলতার গল্প। তার সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

মোঃ নাজমুল হোসেন

Popular Blog

4 comments on “ ফেসবুকে Conversion ক্যাম্পেইন সেট করার পদ্ধতি

Leave a Comments

0
0 item
My Cart
Empty Cart